আঘাত হানতে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় “আমফান”, সমুদ্রবন্দরসমূহে ৪ নং বিপদ সংকেত জারি।

নিজস্ব প্রতিবেদক : সামিয়া নওশীন বাশার ||

দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে। এটি দক্ষিণ – দক্ষিণ পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করে ধীরে ধীরে উত্তর – পশ্চিমে অগ্রসর হচ্ছে। থাইল্যান্ড ঘূর্ণিঝড়টির নামকরণ করেছে “আমফান”।

ঘন্টায় ঘূর্ণিঝড়টির গতি গড়ে ৮ থেকে ১২ কিলোমিটার। ইতিমধ্যে ১৬ তারিখ, রবিবার আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৪ নং হুঁশিয়ারি সঙ্কেত দেখানোর নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের প্রকাশিত বুলেটিনের মাধ্যমে জানা যায়, চারটি সমুদ্রবন্দরের মধ্যে যথাক্রমে ঘূর্ণিঝড়টির সবচেয়ে নিকটে অবস্থান করছে পটুয়াখালির পায়রা সমুদ্রবন্দর এবং বাগেরহাটের মংলা সমুদ্রবন্দর।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর পর্যবেক্ষণ করছে আমফানের গতিবিধি। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১,৩২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ – দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১,২৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ – দক্ষিণ পশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১,২৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ – দক্ষিণ পশ্চিমে, পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১,২৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে ছিল এর অবস্থান।

এছাড়াও ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ৬২ কিলোমিটার থেকে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে বলে জানায় আবহাওয়া অধিদপ্তর।