ক্ষমতার দাপুটে ছাত্রলীগের নেতা শিক্ষককে পানিতে ফেলে দিলো!!

প্রতিবেদক || মোঃ হাসিবুর রহমান:

দিন দিন যেন শিক্ষকদের মর্যাদা কমে যাচ্ছে। তাদের সম্মান পাওয়ার জায়গায় উল্টো তারাই লাঞ্চিত হচ্ছেন। রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ফরিদ উদ্দীন আহম্মেদকে পুকুরে ফেলে দিয়েছিলো শাখা ছাত্রলীগের এক নেতা।এই ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন সৌরভকে সংগঠন থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করেছে ছাত্রলীগ।

গত শনিবার রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ছাত্রলীগের এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেখানকার মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

গত শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে নিজ কার্যালয়ে যাওয়ার সময় কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী অধ্যক্ষকে টেনে ধরে নিয়ে পাশের এক গভীর পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়।

অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দীন আহম্মেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিভিন্ন সময় ছাত্রলীগের ছেলেরা অন্যায় দাবি নিয়ে আসতো আমার কাছে। তাদের ওইসব দাবি না মানায় তারা আমার উপর ক্ষুব্ধ ছিল। বেশিরভাগ সময় তাদের দাবিগুলো মানার মত থাকে না।’

অধ্যক্ষ আরো বলেন, ‘ক্লাসে উপস্থিতি কম থাকায় দুইজন ছাত্রের ফরম পূরণ করা হয়নি। সেই দুই ছাত্রের ফরম পূরণ করানোর জন্য সকালে কয়েকজন আমার কাছে এসেছিল। কিন্তু আমি তাদের বিভাগীয় প্রধানের কাছে যেতে বলি। এ সময় তারা আমাকে নিয়ে আমার সামনেই অশালীন মন্তব্য করে। এতে বিরক্ত হয়ে তাদের উপর ক্ষুব্ধ হয়ে আমিও কয়েকটি কথা বলি।

অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দীন বলেন, ‘দুপুরে নামাজ পড়ে অফিসে যাওয়ার সময় কামাল হোসেন সৌরভ আমার পথ আটকে দাঁড়িয়ে বলে, স্যার কথা আছে। একটু পুকুরের দিকে আসেন। আমি যেতে না চাইলে তারা আমাকে তুলে নিয়ে গিয়ে পুকুরে ফেলে দেয়। এরপর তারা পালিয়ে যায়। তাদের মধ্যে দুইজনের মুখ বাধা ছিল।’

এই ঘটনার প্রেক্ষিতে অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. ফরিদ উদ্দীন আহম্মেদ বাদী হয়ে ৭ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৫০ জনের বিরুদ্ধে মহানগরীর চন্দ্রিমা থানায় মামলা দায়ের করেন।