পারিবারিক সম্পর্ক দৃঢ় করার উপযুক্ত সময় লকডাউন

প্রতিবেদক || সৈয়দ মেহেদী হাসান আলভী :

COVID 19 যা করোনা ভাইরাস নামক একধরনের আরএনএ ভাইরাস থেকে সৃষ্ট শ্বাসতন্ত্রকে ক্ষতিগ্রস্তকরী একটি রোগের নাম। সংক্রমিত ব্যাক্তির হাঁচি, কাশি বা শ্বাসতন্ত্র থেকে নির্গত তরলের মাধ্যমে সুস্থ মানুষের দেহে এ রোগের সংক্রমণ ঘটে। চীনের উহান শহর থেকে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া এ রোগের কবলে পড়ে সমগ্র বিশ্বের এখন বেহল অবস্থা। বিশ্বের অনেক শক্তিধর দেশও এই অদৃশ্য শক্তির কাছে নিত্যান্তই তুচ্ছ। বাংলাদেশ সরকার প্রথম থেকে অনেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা সত্বেও করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে প্রবেশ করে। তবে এটি যাতে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়তে না পারে তাই বাংলাদেশ সরকার ২৬শে মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে এবং অধিক পরিমাণে সংক্রমিত এলাকা সমূহকে লকডাউন এর আওতায় নিয়ে আসে। কয়েক দফা সাধারণ ছুটি ও লকডাউন এর মেয়াদ বাড়ানোয় প্রায় দুই মাস ধরে মানুষ একান্ত প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে বের হতে পাড়ছে না। ফলে অনেকটা আশা-হতাশায় দিন কাটছে মানুষের। আবার এই সুযোগে অনেকে নিজেদের পারিবারিক সম্পর্কটাকে ঝলাই করে নিচ্ছেন। সাধারণ সময়ে জীবিকার তাগিদ, শিক্ষা সহ নানা কারণে পরিবারের সকল সদস্য দীর্ঘ সময় ধরে একসাথে থাকতে পারে না। কিন বর্তমান পরিস্থিতিতে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর এক চমৎকার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে পরিবারের ছোট সদস্যরা বড়দের কাছে পেয়ে আনন্দেই সময় কাটাচ্ছে। তাদের পারিবারিক শিক্ষাটাও সুসম্পন্ন হচ্ছে। আবার দীর্ঘ সময় বাবা-মাকে কাছে পাওয়ায় বাবা-মার সাথে সম্পর্কটাও খুব গাঢ় হচ্ছে। অন্যদিকে পরিবারের বয়োজ্যেষ্ঠ সদস্য যারা বাধ্যক্যের কারণে বাসা থেকে তেমন একটা বের হতে পারে না তারাও সকলের উপস্থিতিতে সেবাযত্ন পেয়ে মানসিক প্রশান্তি নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন। অনেকে আবার পরিবারের সাথে ঘরোয়া খেলায় মেতেছেন। অনেকে তো নতুন খেলাই উদ্ভাবন করে ফেলেছেন। হাতে যথেষ্ট সময় পাওয়ায় প্রযুক্তির কল্যাণে মানুষ নিজেদের আত্মীয় স্বজনদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে করোনা পরিস্থিতি পরিবারকে সময় দিয়ে সম্পর্ক দৃঢ় করার উপযুক্ত সময়।