রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী দ্বারা দিন দিন অপরাধ বাড়ছে

নিজস্ব প্রতিবেদন || ইমাম হোসেন শরীফ :

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অপরাধ কর্মকাণ্ড দিন দিন বাড়ছে বলে নানা পক্ষ থেকে উদ্বেগ প্রকাশ করা হচ্ছে। শনিবার রাতে টেকনাফের নয়াপাড়া ক্যাম্পে গতরাতে রোহিঙ্গাদের দুটি গ্রুপের গোলাগুলিতে অন্তত একজন নিহত হওয়ার পর প্রশ্ন উঠছে, একসঙ্গে এতগুলো নিরাপত্তা বাহিনীর উপস্থিতি ও কড়া নজরদারী সত্ত্বেও রোহিঙ্গাদের হাতে অস্ত্র পৌঁছচ্ছে কীভাবে? পুলিশ বলছে টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরে শনিবার রাতের গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে দুটি ‘ডাকাত’ দলের মধ্যে। তারা বলছেন, কক্সবাজারের ক্যাম্পগুলোকে ঘিরে বেশ কটি ‘গ্যাং’ গড়ে উঠেছে। পুলিশের ভাষ্যমতে, এই সব সশস্ত্র অপরাধী দলের মধ্যে রয়েছে প্রায় বছর তিরিশ আগে আসা হাকিম ডাকাত গ্যাং-এর নাম। নতুন গড়ে উঠেছে ‘জকির ডাকাত গ্রুপ’। এছাড়া রয়েছে ছলিম গ্রুপ। বলা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের এসব গ্যাংগুলোর মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা বাড়ছে। র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের কক্সবাজারের অঞ্চলের দায়িত্বে থাকা র‍্যাব ১৫’র অধিনায়ক উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ বিবিসিকে বলেন, এসবের কেন্দ্রে রয়েছে নিষিদ্ধ মাদক ইয়াবার ব্যবসা ও তার টাকা ভাগাভাগি। তিনি বলেছেন, “এখানে কিছু কিছু ডাকাত গ্রুপ আছে যারা ইয়াবার ব্যবসার সাথে জড়িত। রোহিঙ্গারা নিজেরা নিজেরা যখন মারামারি করে তখন এই ইয়াবার ব্যবসার টাকা-পয়সা ভাগাভাগি নিয়েই বেশিরভাগ মারামারি করে এবং আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করে।” “এছাড়াও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কিছু বাজার আছে। সেখানে দোকান থেকে ওরা চাঁদাবাজি করে। তারা বিভিন্ন গ্রুপের নাম দিয়ে টাকা পয়সা সংগ্রহ করে। সেটাও তাদের নিজেদের মধ্যে কলহের একটি কারণ।” তাদের হাতে অস্ত্র কিভাবে পৌঁছচ্ছে? বিবিসির এই প্রশ্নের জবাবে র‍্যাবের ঐ কর্মকর্তা বলেন, “গত তিরিশ বছর ধরে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আছে। যাদের বয়স তিরিশের নিচে এদের মধ্যে অনেক রোহিঙ্গা আছে যাদের জন্মই বাংলাদেশে। তারা অন্যান্য অনেক বাংলাদেশিদের মতো অপরাধের সাতে জড়িত। বাংলাদেশি যারা ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত তাদের সাথেও এদের সম্পর্ক রয়েছে।” কক্সবাজারে সবমিলিয়ে ৩৩ টি রোহিঙ্গা শিবির রয়েছে যেখানে এগারো লাখের বেশি রোহিঙ্গার বাস। বিশ্বের সবচাইতে বড় শরণার্থী শিবির এখন উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প।