শ্রীমঙ্গলে শীতের আমেজ!!

প্রতিবেদক || মোঃ হাসিবুর রহমান :

শীতের আগমন সবাই বরণ করে নেয় শিশির ভেজা ঘাস আর খেজুরের রসে। প্রকৃতির এক অপরূপ সৌন্দর্য্যের দেখা মিলে শীতে।সেই শীতের আগমন হয় বোধহয় কুয়াশার মাধ্যমেই আমাদের দেখা দেয়। শুরুতে হয়তো শ্রীমঙ্গলেই ধরা দিলো শীতের মায়াজাল। সন্ধ্যার কিছুক্ষন পর থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত ঘন কুয়াশা আচ্ছন্ন করে রাখছে শ্রীমঙ্গলের প্রকৃতিকে।

কয়েক দিন ধরেই সন্ধ্যার পর থেকে পরদিন সকাল পর্যন্ত কিছুটা শীত শীত ভাব অনুভূত হচ্ছে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে। দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত আবহাওয়া গরম থাকলেও রাতে মিলছে শীতের আমেজ। আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার সূত্র বলছে, শ্রীমঙ্গলে শীত পড়া শুরু করেছে। এ মাসের শেষ দিকে পুরোদমে শীতের আমেজ পাওয়া যাবে।

শ্রীমঙ্গলের কুয়াশাভেজা সকাল গ্রাম বাংলারই যেন হারিয়ে যাওয়া অপরূপ সৌন্দর্য্যের প্রতিচ্ছবি।

প্রতিবছরই শীত এই বাংলায় উৎসবের আমেজ নিয়ে আসে। তবে এর তীব্রতা বাড়লে জীবনযাত্রা বিপন্নও হয় প্রান্তিক মানুষের। বিশেষ করে, দরিদ্র মানুষ পর্যাপ্ত শীতবস্ত্রের অভাবে দুর্ভোগের শিকার হন। গৃহহীন, ছিন্নমূলেরাও অসহনীয় কষ্টের শিকার হয়। এ সময় শীতজনিত নানা রোগও দেখা দেয়। কিন্তু এবার একটু আগেই শীত পড়তে শুরু করেছে।

ভাড়াউড়া জেমস ফিনলে টি কোম্পানির ডিজিএম গোলাম শিবলী বলেন, “ঘন কুয়াশার কারণে একটু আগেই শীতের আমেজ দেখা দিয়েছে। বেশি শীত পড়াটা চায়ের জন্য ক্ষতিকর। শীত না আসাটাই ভালো। তবে এবার চায়ের উৎপাদন ভালো।”

শ্রীমঙ্গল আবহওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিছুর রহমান বলেন, “শ্রীমঙ্গল পাহাড়ি এলাকা হওয়ায় শীতের প্রভাব একটু বেশি লক্ষ্যনীয়।