সৈনিক নাসিম…

নাঈম হাসান।।কুমিল্লা।

গত কাল সকালেও জল-জ্যান্ত, হাঁসি-খুশি একটা মানুষ ছিলো, কিন্তু বর্তমানে তার নিথর, নিস্তব্ধ দেহ পড়ে আছে চট্টগ্রাম সিএমএইচের মর্গে।
মায়ের কাছে এই পৃথিবী, বাবার কাছে বৃদ্ধ বয়সের হাতের লাঠি, ছেলে-মেয়ের কাছে সুপার হিরো আর স্ত্রীর কাছে বাঁচার অবলম্বন। বোনের কাছে পৃথিবীর সবচেয়ে আপন আর ভাইয়ের কাছে নাড়ি ছেড়া ধন নাসিমের কি দরকার ছিলো পার্বত্য চট্টগ্রামে আসার? তার জীবনের কি কোন মূল্য ছিলো না? এভাবে সন্ত্রাসীদের গুলিতে মরতে হলো তাকে?
পার্বত্য চট্টগ্রামের হানাহানি, মারামারি, চাঁদাবাজি, অপহরণ আর খুনের মতো ঘটনা রোধ করে পাহাড়বাসীকে শান্তি আর নিরাপত্তা দিতে এসে আজ খালি হলো মায়ের বুক। মৃত্যু আসলেই সহজ একটা বিষয়।
একটি বারের জন্যও কি চিন্তা করেছেন? নাসিমের পরিবারে কি চলছে এখন? নাসিমের জায়গায় কি আমি-আপনি কিংবা আমরা হতে পারতাম না?
মনে রাখবেন, এই পাহাড় আসলে বাইরে থেকে সবুজ আর সৌন্দর্যের লীলাভূমি মনে হলেও আসলে এই পাহাড় হচ্ছে রক্ত খেকো একটা জানোয়ার!!
রক্তের পিপাসা কোনদিন মিটবে না এই পাহাড়ের! এভাবেই ঝরতে থাকবে তাজা প্রান! খালি হবে মায়ের কোল, শূন্য হবে বাবার বুক, কাঁদবে স্ত্রী-সন্তান আর নিরবে সহ্য করে যাবে পাহাড়ের জনগণ। কারণ এই পাহাড়ে বসবাসকারী সবারই এখন সয়ে গেছে মৃত্যু যন্ত্রনা