চবিতে সেমিনার অনুষ্ঠিত

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে ‘ডেঙ্গু বিস্তারের কারণ ও করণীয়’ শীর্ষক সেমিনার ২৫ সেপ্টেম্বর আয়োজিত হয়। সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রফেসর ড. আনোয়ার খসরু পারভেজ। তিনি বলেন, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে চারটি বিষয়ের সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন। এগুলো হচ্ছে- পরিবেশ ব্যবস্থাপনা অর্থাৎ পরিবেশ পরিষ্কার- পরিচ্ছন্নতা, জৈবিক নিয়ন্ত্রণ বা জীববৈচিত্র্য রক্ষা, মশা নিরোধক স্প্রে, ওষুধের সঠিক প্রয়োগ ও জনসচেতনতা। এজন্য স্বল্পমেয়াদি, মধ্যমমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা থাকতে হবে।

গবেষকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, অক্টোবর মাস থেকে প্রাকৃতিকভাবে মশা কমে যাবে। কিন্তু ডিম থেকে যাবে। আবার যখন বৃষ্টি হবে তখন হ্যাচিং করে মশা জন্ম নেবে। গবেষকদের এই ডিম ধ্বংসের ব্যাপারে মনোযোগ দেয়া উচিত। ডেঙ্গু মোকাবিলার বিষয়ে বলেন, ভাইরাস হওয়ার কারণে ডেঙ্গুর কোনো ওষুধ নাই। হয় ডেঙ্গু আটকাতে হবে, না হয় মশা আটকাতে হবে। কিন্তু ডিম নষ্ট করার সুযোগ না থাকায় এখন উপায় মশা ও লার্ভা ধ্বংস করা। এডিস না বুঝে এডিসকে মারবেন কীভাবে? এডিসের জন্ম পরিচয় জানতে হবে। যারা যত্রতত্র স্প্রে করে বেড়াচ্ছেন, এটা শোডাউন ছাড়া কিছুই না। তিনি বলেন, এটা কানাডার সমস্যা না, সেখানে গবেষণা করলে হবে না। বাংলাদেশের সমস্যা বাংলাদেশই সমাধান করবে, বাংলাদেশেই গবেষণা করতে হবে। মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের সভাপতি ড. মোহাম্মদ জোবাইদুল আলমের সভাপতিতে ডেঙ্গু গবেষক, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।