পুরো পরিবারকে শোকের ছায়ায় ভাসিয়ে মায়ের মৃত্যুর ৩ দিনের মাথায় ওপারে চলে গেলেন ইরফান খান।

প্রতিবেদক || মুজাহিদ হাসানঃ

জনপ্রিয় বলিউড অভিনেতা ইরফান খান। অভিনয় করেছেন হলিউড ও বলিউডের বহু ছবিতে। বাংলাদেশে বহুল আলোচিত চলচ্চিত্র ‘ডুব’ এর মূল ভূমিকায় ছিলেন তিনি। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি পেয়েছেন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও। করোনা ভাইরাসের জেড়ে গোটা ভারত লকডাউনে। লকডাউনে মুম্বাইয়ে অবস্থান করছিলেন তিনি। যার কারণে নিজের মায়ের মৃত্যুর শেষকৃত্যও করা হয়নি তার।

থেমে গেল এই জনপ্রিয় অভিনেতার জীবনযুদ্ধ। তার সংস্থা পি আর জানায় হঠাৎ করে অসুস্থ হলে তাকে মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এ সময় তার বয়স ছিল ৫৩ বছর।

২০১৮ সালে ক্যান্সারে আক্রান্ত হন জনপ্রিয় এই অভিনেতা। যা তিনি টুইটারে তার ভক্তদের নিশ্চিত করে জানান। লন্ডনের একটি হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিকিৎসার পর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে দেশে ফেরেন তিনি।ক্যান্সার নিয়ে জনসম্মুখে জানানোর ২ মাস পর তিনি এ বিষয়ে তার অভিজ্ঞতা নিয়ে একটি খোলা চিঠি লেখেন, যেখানে তিনি ক্যান্সারের চিকিৎসা নেওয়ার সময় তার কষ্ট এবং জীবনের অনিশ্চয়তার কথা তুলে ধরেন।

তার মৃত্যুতে পরিবার ও বলিউডের উপর নেমে আসে শোকের ছায়া। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে তার ভক্তরা তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন বলিউড তারকা ও ভারতের রাজনীতিবিদরা।

সুপারস্টার অমিতভ বচ্চন যিনি পিকু চলচ্চিত্রে তার সাথে অভিনয় করেছেন, তিনি এক টুইটে বলেন, “চলচ্চিত্র জগতের এক্নবিশ্বাস্য প্রতিভা ইরফান। বিনীত সহকর্মী, কর্মঠ অভিনেতা খুব জলদি আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন। বলিউডে অনেক বড় শূন্যতা তৈরী করে গেলেন তিনি।”
বলিউড অভিনেত্রী রাভিনা ট্যানডন এক টুইটে বলেন,” চমৎকার একজন সহ-অভিনেতা, অন্যতম শ্রেষ্ঠ একজন অভিনেতা ও একজন সুন্দর মনের মানুষ ছিলেন তিনি।”

২০১৩ সালে ‘পান পান সিং তোমার’ নামে একটি বায়োপিক সিনেমার নাম ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য তিনি ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।

শ্রদ্ধা ও ভালবাসা তার আশরীর আত্মার জন্য। তার আত্মার প্রতি শান্তি দোয়া ও প্রার্থনা।