আমেরিকা এবং তাদের পরিবেশ রক্ষা নীতি।

নিজস্ব প্রতিবেদক।। জহুরুল ইসলাম রাকিব:

পৃথিবীর অন্যতম বড় একটি দেশ আমেরিকা। এই দেশটি শুধু আয়তনেই নয়, সৈন্য সামর্থ্য এবং রাসায়নিক ক্ষমতা দিয়েও অনেক শক্তিশালী একটি দেশ।
এই দেশটি জাতিসংঘের অর্থ সহায়তা সহ কোনো দেশে বিশৃঙ্খলা থাকলে শান্তি ফিরিয়ে আনতে সহযোগিতা করে থাকে।
আমেরিকা অনেক আগে থেকেই পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় অর্থ ব্যয় সহ নানা প্রকার কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। কিন্তু সম্প্রতি এই দেশটি এসকল কাজ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিচ্ছে।এর মধ্যে সবচেয়ে বড় ভাবনার বিষয় হলো পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষা ইস্যু। এখন এই বিষয়ে সহযোগিতা বা অর্থ ব্যয় তো দূরের কথা,, বিভিন্ন পরিবেশ বিষয়ক সম্মেলনে চুক্তি স্বাক্ষর বা অংশগ্রহণ থেকেই নিজেদের দুরে রাখছে।এতে করে হুমকির সম্মুখীন বিশ্ব পরিবেশের ভারসাম্য।
যদিও তাদের দেশের সচেতন নাগরিক এ নিয়ে অনেক প্রতিবাদ, মিছিল, সমাবেশ পরিচালনা করে আসছে তবুও তাদের সরকারের কাছে তা গুরুত্ব পাচ্ছে না।
তাহলে কেন তারা এভাবে পরিবেশ রক্ষায় অনীহা প্রকাশ করছে?
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমেরিকার একটি বড় অংশ, যার নাম আলাস্কা সেটি বরফে আচ্ছাদিত। সেখানে কোনো ফসল উৎপাদন হয় না। এমনকি মানুষ ও খুব কষ্ট করে বাস করে।অথচ সেখানে প্রচুর পরিমাণে খনিজ সম্পদ আছে , যা তারা উত্তোলন করতে পারছে না। এবং বলা যায় আলাস্কা অনেকটা পতিত অবস্থায় পড়ে আছে। এখন আমেরিকার মাস্টারমাইন্ডরা গবেষণা করে দেখেছেন যে,ঐ বরফের আস্তরন সরাতে তাপমাত্রা বৃদ্ধি প্রয়োজন। এতে করে আলাস্কার বরফ গলে গিয়ে শেষে স্থানটি উন্মুক্ত হবে।এবং এতে করে আমেরিকা বেশি লাভবান হবে।
কিন্তু এর প্রতিক্রিয়া হবে ভয়াবহ। সমুদ্রের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পাবে,ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগ আঘাত হানবে, সমুদ্রের তীরবর্তী অঞ্চল ডুবে যাবে। তবে এতে করে আমেরিকার কোনো ক্ষতি হবে না।