ভারতে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ২৬ আক্রান্ত ১০৬০।

প্রতিবেদক-ছানাউল্লাহ(তাহসিন)

করোনাভাইরাসে ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং আক্রান্ত হয়েছে আরো ১০৬০ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৪৮ জনে এবং মোট আক্রান্ত ১৩ হাজার ৪৩০ জন।

বৃহস্পতিবার (১৬ এপ্রিল) দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রেস ট্রাস্ট অফ ইন্ডিয়ার সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুসারে করোনাভাইরাসে বেশি আক্রান্ত পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যে। সেখানে প্রায় তিন হাজারেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে।

দেশটির রাজধানী দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন বৃহস্পতিবার বলেছেন, দিল্লীতে এ পর্যন্ত এক হাজার ৫০০ এর বেশি আক্রান্ত হয়েছেন। তার মধ্যে প্রায় ৬৮ ভাগ মানুষ নিজামুদ্দিনের তাবলীগে অংশ নেওয়া ব্যক্তি।

চীনে ভারতের রাষ্ট্রদূত বিক্রম মিস্রি জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে মহামারি করোনাভাইরাস ঠেকাতে চীন থেকে ভারতে করোনভাইরাসের চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে সাড়ে ছয় লাখ র‍্যাপিড এন্টিবডি টেস্ট এবং আরএনএ এক্সট্রাকশন কিট।

কোভিড-১৯ সংক্রমণ রুখতে গত ২৫ মার্চ থেকে ভারতে ২১ দিনের লকডাউন শুরু হয়েছিল দেশব্যাপী। সেই ২১ দিনের লকডাউন শেষ হয়েছে ১৪ এপ্রিল। পরে আগামী ৩ মে পর্যন্ত দেশজুড়ে নতুন করে লকডাউন জারি করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

৩ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার পাশাপাশি আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত দেশটির প্রতিটি জায়গায় বিশেষ নজরদারি চালানো হবে বলে জানিয়েছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম। দেশের প্রতিটি স্থানে সঠিকভাবে লকডাউন পালন হচ্ছে কি-না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

তবে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, লকডাউনের সময়সীমা বাড়ালে দেশের অর্থনীতি আরো হুমকির মুখে পড়বে। কিন্তু সংক্রমণ কমাতে ও জীবন বাঁচানোর জন্য লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই।

এদিকে, কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে, যদি লকডাউন না হতো তাহলে দেশের ৮ দশমিক ২ লাখ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হত বলে মনে করেন।