মৃত্যর আশা নেই আর এই বৃদ্ধের। নাঈম হাসান।কুমিল্লা।

ওই বৃদ্ধ এক সংবাদমাধ্যমকে দুঃখ করর বলেন, ‘আমার চোখের সামনে আমার বহু নাতি নাতনিদের মারা যেতে দেখেছি।কিন্তু আমাকে আজ পর্যন্ত মৃত্যু গ্রাস করতে পারেনি।’ এই বৃদ্ধ মৃত্যুর আশা ছেড়ে দিয়েছেন। শেষ জীবনে তিনি চান বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যাক্তি হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেতে। তিনি চান তাঁকে বিশ্বের সবথেকে বয়স্ক ব্যাক্তি হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়া হোক।

এর আগে গিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে সবথেকে প্রবীণ ব্যাক্তি হিসেবে নাম ছিল ফ্রান্সের জিয়ানে লুইস কালমেন্ট। ১২২ বছর বেঁচে রেকর্ড গড়েছিলেন তিনি। তাঁর জন্ম হয়েছিল ১৮৭৫ সালে। মৃত্যু হয় ১৯৯৭ সালে।

এক সংবাদমাধ্যমে বেরোনো রিপোর্ট অনুযায়ী মহাশতা মুরাসি ১৮৩৫ সালের ৬ই জানুয়ারি। হিসেব মতো তাঁর বয়স ১৮৪। মুরাসির জন্মের প্রমাণপত্র হিসেবে ভারতীয় কার্ড ও জন্ম প্রমাণপত্র মিললেও কোনো মেডিক্যাল রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। মুরাসি ১৯৭১ সালে শেষবার ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলেন। সেই ডাক্তারও বর্তমানে মৃত। মুরাসির বয়স যদি ১৮৪ বছর প্রমানিত হয় তাহলেই তাঁকে বিশ্বের সবচেয়ে বৃদ্ধ ব্যাক্তির স্বীকৃতি দেওয়া হবে।মাকে আজ পর্যন্ত মৃত্যু গ্রাস করতে পারেনি।’ এই বৃদ্ধ মৃত্যুর আশা ছেড়ে দিয়েছেন। শেষ জীবনে তিনি চান বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যাক্তি হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেতে। তিনি চান তাঁকে বিশ্বের সবথেকে বয়স্ক ব্যাক্তি হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়া হোক।