টেস্ট ইতিহাসে এর আগে ৩৯৫ রানের লক্ষ্যে ৬টি দল খেলতে নেমেছিল। চারবারই হারতে হয়েছে, বাকি দুবার সমতায় শেষ হয়েছে ম্যাচ। বিশাখাপট্টনমে তাই কাল চতুর্থ দিন শেষে পরিষ্কারভাবেই এগিয়ে ছিল ভারত। আজ পঞ্চম ও শেষ দিনে সকালের সেশনেই জয়ের দেখা পেয়ে যাচ্ছিল স্বাগতিকেরা। কিন্তু প্রোটিয়াদের লোয়ার অর্ডার মানে লেজের বেরসিক ব্যাটসম্যানেরা ভারতকে যতক্ষণ সম্ভব অপেক্ষায় রাখার চেষ্টা করেছেন। তাতেও অবশ্য বড় হার এড়াতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। দ্বিতীয় ইনিংসে ১৯১ রানে অলআউট হয়েছে তারা।
বিশাখাপট্টনম টেস্টে ২০৩ রানের ব্যবধানে জিতেছে ভারত। টেস্টে এ নিয়ে টানা তৃতীয়বার ন্যূনতম ২০০ রানের ব্যবধানে জিতল বিরাট কোহলির দল। তবে বিশাখাপট্টনমে জয়ের এ ব্যবধান দেখলে বোঝা যাবে না শেষ দিকে বুক চিতিয়ে লড়েছে প্রোটিয়াদের লোয়ার অর্ডার। জয়ের জন্য ৩৯৫ রানের লক্ষ্যে কালই ব্যাটিংয়ে নেমে ১ উইকেট হারিয়ে ১১ রান নিয়ে চতুর্থ দিন শেষ করেছিল সফরকারী দল। আজ সকালের সেশনেই পড়েছে আরও ৭ উইকেট। ১১৭ রান তুলতেই ৮ উইকেট হারিয়ে মধ্যাহ্নভোজের বিরতিতে যায় প্রোটিয়ারা। তখন উইকেটে ছিলেন সেনরুয়ান মুথুস্যামি ও ডেন পিয়েত। মধ্যাহ্নভোজ বিরতির পর দুজনের বুক চিতিয়ে লড়াই করা দেখে নিশ্চয়ই মুখ লুকিয়েছে প্রোটিয়া টপ অর্ডার।
দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য হার তখন কেবলই সময়ের ব্যাপার। এ অবস্থায় নবম উইকেট জুটিতে স্রোতের বিপরীতে লড়াই করে ৯১ রান তুলেছেন মুথুস্যামি ও পিয়েত। সাতে নামা মুথুস্যামি ১০৮ বল খেলে এক প্রান্ত আগলে রেখেছিলেন শেষ পর্যন্ত। তাঁর দুর্ভাগ্য শেষ পর্যন্ত ফিফটি পাননি। অপরাজিত ছিলেন ৪৯ রানে। প্রোটিয়াদের প্রথম ইনিংসেও ১০৬ বল খেলে ৩৩ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি।
দশে নামা পিয়েত আজ ১০৭ বল খেলে ৫৬ রান করে আউট হন। টেস্ট ক্যারিয়ারে এটাই প্রথম ফিফটি এ স্পিনারের। এর মধ্য দিয়ে ভারতের মাটিতে একটি রেকর্ডও গড়েছেন পিয়েত। সেখানে টেস্টে চতুর্থ ইনিংসে আটে কিংবা তার নিচে ব্যাটিংয়ে নেমে সর্বোচ্চ স্কোরের রেকর্ডটি এখন তাঁর দখলে। প্রোটিয়াদের দ্বিতীয় ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের স্কোরটিও এসেছে পিয়েতের ব্যাট থেকে। এতেই বোঝা যায় ভারতীয় বোলারদের সামনে প্রোটিয়া টপ অর্ডার কতটা ভুগেছে!
ভোগান্তি বাড়ানোর মূল কাজটি করেছেন মোহাম্মদ শামি। মাত্র ১০.৫ ওভার বল করেই ৫ উইকেট তুলে নেন এ পেসার। প্রতিপক্ষের দ্বিতীয় ইনিংসে পুরোনো বলে শামি সব সময়ই ভয়ংকর পেসার। এ নিয়ে চতুর্থবারের মতো প্রতিপক্ষের দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেটের দেখা পেলেন শামি। ৪ উইকেট নিয়েছেন স্পিনার রবীন্দ্র জাদেজা। হ্যাটট্রিকের সুযোগও ছিল তাঁর। প্রোটিয়াদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৭তম ওভারেই ৩ উইকেট নেন জাদেজা। প্রথম বলে এইডেন মার্করামকে ফেরানোর পর চতুর্থ ও পঞ্চম বলে তুলে নেন ফিল্যান্ডার ও মহারাজকে। তখন তিনটি স্লিপ, শর্ট লেগ ও সিলি পয়েন্ট নিয়ে বল করেছে স্বাগতিকেরা।
তিন ম্যাচের এ টেস্ট সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল ভারত। বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ পয়েন্ট টেবিলেও শীর্ষে রয়েছে কোহলির দল। ৩ ম্যাচ থেকে ১৬০ পয়েন্ট তুলে নিয়েছে দলটি।

Source: The Daily Prothom Alo